ঢাকারবিবার , ১৫ মে ২০২২
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আর্ন্তজাতিক
  5. ইসলাম
  6. ক্রিকেট
  7. খুলনা
  8. খেলাধুলা
  9. চট্রগ্রাম
  10. জাতীয়
  11. জানা অজানা
  12. টিপস
  13. ঢাকা
  14. তথ্য ও প্রযুক্তি
  15. দুর্ঘটনা
সর্বশেষ সবখবর

তিন বছর কোন আয় করতে পারেনি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

বর্ণমেলা নিউজ
মে ১৫, ২০২২ ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন
Link Copied!

চার বছর আগে ধনকুবের ইলন মাস্কের মালিকানাধীন স্পেসএক্স-এর নতুন প্রযুক্তির রকেট ফ্যালকন নাইনে করে যখন মহাকাশে প্রথম স্যাটেলাইটটি পাঠিয়েছিল বাংলাদেশে, তখন দেশটি মহাকাশে পদচিহ্ন আঁকা এলিট দেশগুলোর ক্লাবে প্রবেশের গৌরব অর্জনের পাশাপাশি এটা থেকে অনেক আয় করারও স্বপ্ন দেখেছিল।

Advertisements

কিন্তু চার বছর পর এসে কর্তৃপক্ষ বলছে, নানা কারণে উৎক্ষেপনের প্রথম তিন বছরে স্যাটেলাইটটি থেকে কোন আয় করতে পারেনি বাংলাদেশ। ফলে খরচ উঠে আসার যে প্রাথমিক হিসেব নিকেশ করা হয়েছিল, তাতে দেখা যাচ্ছে এই খরচ উঠতে আরো বেশি সময় লাগবে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ তৈরি এবং উৎক্ষেপণে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা খরচ হয়েছিল, যা উৎক্ষেপণের সময় বলা হয়েছিল, পরবর্তী সাত বছরের মধ্যে অর্থাৎ ২০২৫ সালের মধ্যে তুলে আনা সম্ভব হবে।

কিন্তু স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপনের চার বছর পূর্তিতে এসে পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বিবিসিকে বলেছেন, “চার বছরের মধ্যে প্রথম তিন বছরে আমরা নানা কারণে কোন আয় করতে পারিনি। কিন্তু আস্তে আস্তে আমরা আয় করতে শুরু করছি।”

বছরে ঠিক কী পরিমাণ আয় হচ্ছে স্যাটেলাইট থেকে সে বিষয়ে তথ্য দেননি মি. ইসলাম।

তবে তিনি বলেছেন, এই মুহূর্তে স্যাটেলাইট থেকে যে আয় হয়, এর পরিচালন ব্যয় হিসেবে তার এক দশমাংশের চাইতেও কম খরচ হয়।

টাকার অংকে সেটি কত সেটি উল্লেখ করেননি তিনি।

সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়ে কর্তৃপক্ষ যা বলছে

দুই হাজার আঠারো সালের ১১ই মে রাতে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে এই স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়।

কর্মকর্তারা বলছেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ছিল মহাকাশে বাংলাদেশের উপস্থিতি জানান দেয়ার মিশন।

বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট তথ্য
ছবির ক্যাপশান,২০১৮ সালের ১১ই মে রাতে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ হয়

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের বিষয়টিকে জাতীয় গৌরবের অংশ হিসেবেই দেখা হয়েছিল সেসময়।

যেসব লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে স্যাটেলাইট তৈরি এবং উৎক্ষেপণ করা হয়, তার অনেকটাই পূরণ হয়েছে বলে দাবি করছেন বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মি. ইসলাম।

তবে স্যাটেলাইট থেকে আয় করার ক্ষেত্রে লক্ষ্য পূরণ না হওয়া এবং দেশীয় বাজারের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা সৃষ্টি করতে না পারার ব্যর্থতা স্বীকার করে নিয়েছেন মি. ইসলাম।

কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, এটি যখন উৎক্ষেপণ করা হয়, তখন বাজারে স্যাটেলাইট ব্যান্ডউইথের যে দাম এবং সরবরাহ ছিল, সেখানে অনেক প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে।

আর সে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়েছে বাংলাদেশ, যে কারণে আন্তর্জাতিক বাজারটি ধরতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ।

“এজন্য এখন আমরা দেশের ভেতরে নতুন বাজার মানে কাজের ক্ষেত্র খুঁজে বের করছি, যাতে এটা লাভজনক করা যায়।” দেশের বেশ কয়েকটি ব্যাংক এখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সেবা নিচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

মি. ইসলাম বলেছেন, প্রতিবেশী অনেক দেশেরই এখন স্যাটেলাইট আছে, যে কারণে ব্যান্ডউইথের দাম এবং সেবায় প্রতিযোগিতা অনেক বেশি।

স্যাটেলাইট স্থাপনের সময় যেসব উদ্দেশ্য ছিল, তার মধ্যে প্রধান ছিল দেশের দুর্গম অঞ্চলে যেসব এলাকায় ফাইবার অপটিকাল কেবল নেয়া যায় না বলে টেলিফোন সার্ভিস বা ব্যান্ডউইথ দেয়া সম্ভব হয় না, সেসব জায়গায় টেলিযোগাযোগ স্থাপন করা।

মি. ইসলাম জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে দেশের ৩১টি দ্বীপে ১১২টি ভিস্যাট স্থাপন করে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট যোগাযোগ স্থাপন করা গেছে।

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণছবির উৎস,GETTY IMAGES  ছবির ক্যাপশান, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ

এছাড়া দেশের সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে এখন এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ব্রডকাস্ট সার্ভিস বা সেবা দেয়া হচ্ছে। দেশের ৩৩টি বেসরকারি টিভি চ্যানেল যারা আগে বিদেশি স্যাটেলাইট থেকে ব্যান্ডউইথ নিত, ২০১৯ সাল থেকে তারা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সেবা নিচ্ছে।

সফলতার আরেকটি উদাহরণ হিসাবে মি. ইসলাম উল্লেখ করেন, “এই স্যাটেলাইটের পরিচালনায় এখন বাংলাদেশের ছেলেমেয়েরাই শতভাগ কাজ করছে। এটা অনেক বড় অর্জন আমাদের, যেহেতু এক্ষেত্রে আমাদের জিরো নলেজ ছিল।”

তবে, শুরুতে যেসব খাতে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল, তার মধ্যে ই-এডুকেশন, ই-লার্নিং, টেলি মেডিসিনের মত খাতে কথা বলা হয়েছিল, কিন্তু কর্তৃপক্ষ বলছে কোভিডের কারণে দেশের প্রাধান্য ছিল মহামারি মোকাবেলা। সেকারণে এসব খাতে কাজ পিছিয়ে গেছে। কিন্তু টেলি মেডিসিন এবং শিক্ষা খাতে খুব দ্রুতই কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

Advertisements

  বর্ণমেলা প্রিন্টার্স এন্ড ক্রেস্ট গ্যালারী আমাদের সেবা সমূহ:- ক্রেস্ট, সম্মাননা স্মারক, মগ, মেডেল, আইডি কার্ড, ভিজিটিং কার্ড, ক্যালেন্ডার, পোস্টার, পিভিসি ব্যানার, ষ্টিকার সহ সকল প্রকার ছাপার কাজ করা হয় এবং সকল প্রকার সীল তৈরি ও যে কোন অনুষ্ঠানের গেঞ্জী, টিশার্ট প্রিন্ট করা হয়। ঠিকানা: সিডষ্টোর বাজার, ভালুকা, ময়মনসিংহ, মোবাঃ ০১৭১৫২৫৩৩৮৫, E-mail: bornamela03@gmail.com
Translate »